1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. mdmizanm944@gmail.com : Mizan Hawlader : Mizan Hawlader
সোমবার, ০১ মার্চ ২০২১, ০১:০৪ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
বাস চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত সাধারণ মানুষের বেসরকারি হাসপাতালের সেবামূল্য সরকার নির্ধারণ করবে….স্বাস্থ্যমন্ত্রী বাংলাদেশ যত অর্জন সব আওয়ামী লীগের হাতেই: ড. হাছান মাহমুদ কাল থেকে ৬ জেলায় মাছ ধরা নিষিদ্ধ জাটকা সংরক্ষণে খাসোগি ইস্যুতে ৭৬ সৌদি নাগরিকের ভিসা নিষেধাজ্ঞা যুক্তরাষ্ট্রের ঢাকা-ওয়াশিংটন জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করবে ‘প্রবীণদের জীবনমান উন্নয়নে সামাজিক নিরাপত্তার পরিধি বাড়ানো হয়েছে’ জিয়ার অবদান অস্বীকার করা মানে স্বাধীনতাকেই অস্বীকার করা….মির্জা ফখরুল বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দামে বড় পতন, ৮ মাসে সর্বনিম্ন বিকেলে সংবাদ সম্মেলনে আসছে প্রধানমন্ত্রী

আমার দৃষ্টিতে আওয়ামী সরকারের এক যুগ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
  • প্রকাশিত : শনিবার, ২৩ জানুয়ারি, ২০২১
  • ২১ বার পড়া হয়েছে

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার গত ২০০৮ সাল থেকে টানা ১২ বছর ধরে রাষ্ট্র ক্ষমতা পরিচালনা করছে। এ সময়ে দেশের অনেক উন্নয়ন হয়েছে। মধ্যম আয়ের দেশ থেকে শুরু করে, নিজেদের টাকায় পদ্মা সেতু, ইন্টারনেট বিপ্লব, বিদ্যুৎ উৎপাদনে সাফল্য, সঠিক পরিকল্পনা ও জেলেদের প্রণোদনা দিয়ে হারিয়ে যাওয়া ইলিশ মাছের উৎপাদন বৃদ্ধিসহ মাংস, ডিম, শাকসবজি উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন স্বয়ংসম্পূর্ণ। উত্তরবঙ্গের মঙ্গা আজ নেই। সেখানকার দারিদ্র্য ও ক্ষুধার্ত মানুষের মুখে হাসি ফুটেছে। অর্থনীতি ও আর্থসামাজিক ক্ষেত্রে অধিকাংশ সূচকেই বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোকে ছাড়িয়ে গেছে। বিশেষ করে পাকিস্তানকে পিছনে ফেলে উন্নয়নের অগ্রগতিতে বাংলাদেশ আজ বিশ্বে রোল মডেল। মেট্রোরেল, পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র, কর্ণফুলী নদীর তলদেশ দিয়ে টানেলের মতো বড় বাজেটের প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন করছে গত এক যুগ ধরে রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকা শেখ হাসিনার সরকার। মায়ানমারে নির্যাতিত প্রায় ১২ লক্ষ রোহিঙ্গাদের আশ্রয়, বৈশ্বিক মহামারি করোনা নিয়ন্ত্রণ ও সেই সাথে প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় বিশ্বের বুকে বিশেষভাবে অনুকরণীয় রাষ্ট্রের মর্যাদা পেয়েছে বাংলাদেশ।

তবে সরকারি কর্মকর্তাদের লাগামহীন দুর্নীতি, নিয়ন্ত্রণহীন পরিবহন সেক্টর, স্বাস্থ্যখাত, শিক্ষা, ক্রীড়াঙ্গন বিশেষ করে ফুটবল হকিতে নজীরবিহীন ব্যর্থতার পরিচয়ও দিয়েছে গত ১২ বছর ধরে ক্ষমতায় থাকা আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন সরকার। আর রাজনৈতিক দল হিসেবে গত ১২ বছরে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ অনেকাংশই ব্যর্থ বলা চলে। তৃণমূলে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দলের ভদ্র, গ্রহণযোগ্য ও ত্যাগী নেতাদের বাদ দিয়ে চাটুকার আর অগ্রহণযোগ্যদের নেতৃত্বে দেখা যাচ্ছে। বিশেষ করে দলের অবকাঠামোগত ভীত নড়বড়ে হয়ে গেছে (দল যখন ক্ষমতার বাইরে যাবে, তখন এটি আরো স্পষ্ট হবে)। স্থানীয় নির্বাচনে মেম্বার, কাউন্সিলার থেকে শুরু করে জাতীয় নির্বাচনে সংসদ সদস্য পর্যন্ত দলের মনোনয়ন পেলেই নির্বাচিত হয়, এই তত্ত্ব তৃণমূল আওয়ামী লীগকে দুর্নীতিগ্রস্থ হতে উৎসাহিত করেছে। অভিযোগ রয়েছে মননোয়ন বাণিজ্যর। যার ফলে দলের ত্যাগী, দুর্নীতিমুক্ত নেতা কর্মীরা বাদ পড়ে যাচ্ছে দলের মনোনয়ন ও দলীয় পদ পাওয়ার দৌড়ে। টাকায় কেনা পদধারী নেতা বা নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা স্থানীয় ফুটপাত, পাবলিক পরিবহন স্ট্যান্ডগুলোতে চাদাবাজির মহোৎসবের প্রভাব পড়ছে জনসাধারণের ওপর। এতে করে বেড়ে যাচ্ছে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দামসহ পরিবহন খরচ। সাংসারিক অতিরিক্ত খরচ মেটাতে ভুক্তভোগীরা বাধ্য হয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত হয়ে পড়ছে নিজ নিজ কর্মস্থলে।

আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকারের সময়, গত এক যুগে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দলীয় চার মূলনীতি। ধর্মনিরপেক্ষতার যে মূলনীতি, আজ তা নিভু নিভু করছে উগ্র মৌলবাধীদের দমকা হাওয়ায়। দেশের সর্বোচ্চ আদালতের রায় সরকারের পক্ষে থাকার পরেও সংবিধানে রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম বাদ না দিয়েই পুনঃস্থাপন করা হয়েছে ধর্মনিরপেক্ষতা!

‘দেশের বৃহৎ একটি গোষ্ঠীকে বাদ দিয়ে দেশ গঠন সম্ভব নয়’- এই নীতিকে সামনে রেখে উগ্র মৌলবাদীদের নীরব সমর্থন নিয়ে এগিয়ে যাওয়া ছিল আওয়ামী সরকারের একটি ভুল ধারণা যা এরই মধ্যে বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রতীয়মান হয়েছে। স্বাধীন দেশে বঙ্গবন্ধুর দল আওয়ামী লীগ, রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকা সত্বেও বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙার মধ্যে দিয়ে সরকারের প্রশ্রয় পাওয়া উগ্র মৌলিবাদীদের আগ্রাসন উপলব্ধি করছে দেশের শান্তিকামী জনতা। অসাম্প্রদায়িক চেতনার আওয়ামী লীগ আজ সাম্প্রদায়িক চেতনার মায়া জালে পরিবেষ্টিত। গণতন্ত্রের চর্চা কিছুটা থাকলেও মনে হচ্ছে সমাজতন্ত্র হারিয়ে গেছে দলের মধ্যে থেকে! আর এর সব কিছুই হচ্ছে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকারের পৃষ্টপোষকতায় গত এক যুগ ধরে!

নির্বাচনী ওয়াদা এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসীদের দীর্ঘ দিনের দাবির প্রতি সম্মান দেখিয়ে দেশ ও আন্তর্জাতিক চাপকে উপেক্ষা করে, নানান যড়যন্ত্র মোকাবেলার মাধ্যমে বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠন করে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার এবং রায় কার্যকর করার মধ্য দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসীদের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছে গত এক যুগ ধরে ক্ষমতায় থাকা শেখ হাসিনার সরকার। বিচারহীনতার বাংলাদেশে জেল হত্যা ও বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার এবং রায় কার্যকর করার মাধ্যমে এক অন্যন্য উচ্চতায় পৌঁছেছে গত ১২ বছরে বাংলাদেশ।

নানান অনিয়ম থাকলেও বৈদেশিক কর্মসংস্থানের সম্প্রসারণ ও রেমিটেন্সের প্রবাহ বৃদ্ধিতে সফলতা দেখিয়েছে বর্তমান সরকার। যা দেশের ইতিহাসে বৈদেশিক রিজার্ভ ৪৩ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যেতে ভূমিকা রেখেছে।

রাজনৈতিক ও শিক্ষা সংশ্লিষ্ট বির্তকের মাঝে কওমি মাদরাসার সর্বোচ্চ সনদের স্বীকৃতি দিয়েও সরকার তাদেরকে উগ্র মৌলবাদের চেতনা থেকে বের করে আনতে পারেনি। ’আল হাইয়াতুল উলাইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশ’ নামে একটি বোর্ড তৈরি করা হলেও এতে সরকারের তেমন কোনো প্রভাব রয়েছে বলে চোখে পড়েনি। বরং মূলধারার পাঠ্য বইয়ে ঢুকিয়ে দেওয়া হচ্ছে উগ্র মৌলবাদ। এতে করে বাহাত্তরের সংবিধান থেকে আরো দূরে সরে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

বর্তমান সংসদে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনকারী দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সংবিধান সংশোধন করে বাহাত্তরের মূল সংবিধানে ফিরে গিয়ে ফতোয়াবাজ উগ্র মৌলবাদীদের মূল ধারায় নিয়ে এসে দেশের অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি আগামীতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তুলবে।

‘আমার দেখা নয়াচীন’ গ্রন্থতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নিম্নলিখিত কথাগুলো অনুধাবন করে বর্তমান সরকার আগামীর পথ চলবে সেই প্রত্যাশায় দেশের আপামর জনগণ। ‘আমার মনে আছে যখন আমি সিলেটে গণভোটে যাই, আমার সাথে প্রায় তিনশত কর্মী ছিল। সিলেটে দেওবন্দের পাস করা প্রায় ১৫ হাজার মওলানা আছেন। তারা প্রায় সকলে একমত হয়ে ফতোয়া দিল যে, সিলেট জেলা পাকিস্তানে যাওয়া উচিৎ হবে না এবং কুরআন হাদিস দিয়ে তা প্রমাণ করে দিতে চেষ্টা করল। হাজার হাজার মওলানা লম্বা জামা পরে কংগ্রেসের টাকা নিয়ে বক্তৃতা শুরু করলো, পাকিস্তানের পক্ষে ভোট দেওয়া হারাম’।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন মজুমদার,
প্রধান উপদেষ্টা সাজ্জাদুল কবীর,
উপদেষ্টা জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা এম মিজানুর রহমান

Copyright © 2020 www.comillabd.com কুমিল্লাবিডি ডট কম. All rights reserved.
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!