আমাকে চৌদ্দগ্রামের মাটি ও মানুষ থেকে বিচ্ছিন্ন করার সূগভীর ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হয়েছে। -এইচ.এন.এম শফিকুর রহমান

স্টাফ রিপোর্টার ঃ ২০০৯ সালে আমি জাতীয় পার্টিতে যোগদানের পর জাতীয় পার্টির পক্ষে- পল্লীবন্ধুর পক্ষে চৌদ্দগ্রাম তথা কুমিল্লাতে যে গণ জোয়ার সৃষ্টি হয়েছিল, দলমত নির্বিশেষে প্রতিদিন হাজার হাজার ছাত্র ও যুব সমাজের গগণ বিদারী শ্লোগানে শ্লোগানে যখন চৌদ্দগ্রাম তথা কুমিল্লার রাজপথ প্রকম্পিত হচ্ছিল- তখন রাজনীতির কুশিলবরা ভীত সন্ত্রস্থ হয়ে নিজেদের মধ্যকার রাজনৈতিক আদর্শের ভেদাভেদ ভূলে ঐক্যবদ্ধ ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে আমাকে ও আমার প্রতিষ্ঠানকে নিচ্ছিন্ন করে চৌদ্দগ্রামের মাটি ও মানুষ থেকে বিচ্ছিন্ন করতে চেয়েছিল, তারা আজ ব্যার্থ হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান, কুমিল্লা দক্ষিন জেলার জাতীয় পার্টির সাধারন সম্পাদক, আই.সি.এল গ্রুপের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক জনাব এইচ.এন.এম শফিকুর রহমান। গত কাল ৩১ শে অক্টোবর ২০১৭ ইং চৌদ্দগ্রাম উপজেলা জাতীয় পার্টি কার্যলয় প্রাঙ্গঁনে আয়োজিত জাতীয় যুব সংহতি চৌদ্দগ্রাম উপজেলা ও চৌদ্দগ্রাম পৌরসভার দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জনাব শফিকুর রহমান উপরোক্ত মন্তব্য করেন, চৌদ্দগ্রাম উপজেলা জাতীয় যুব সংহতির আহবায়ক জনাব জসিম উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন যথাক্রমে .জাতীয় পার্টি কুমিল্লা মহানগরের আহবায়ক, বীর মুক্তিযোদ্ধা ছালামত আলী খাঁন বাচ্চু, কুমিল্লা (দঃ) জেলা জাতীয় পার্টির সিনিয়র সহ-সভাপতি ডাঃ আলী আহম্মদ মোল্লা, কুমিল্লা (দঃ) জেলার সিনিয়র যুগ্ম সাদারণ সম্পাদক বীর মুক্তি যোদ্ধা ওবায়দুল কবির মোহন (মোহন চেয়ারম্যান),. জাতীয় কৃষক পার্টির কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ও কুমিল্লা (দঃ) জেলা জাতীয় পার্টির অন্যতম যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাজী জামাল উদ্দিন, চৌদ্দগ্রাম উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি খায়েজ আহম্মদ ভূইঁয়া, কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও জেলা (দঃ) এর সাংগঠনিক সম্পাদন আঃ কুদ্দুস মানিক, জাতীয় যুব সংহতি ময়নামতি সাংগঠনিক বিভাগের সাংগগঠনিক সম্পাদক ও যুব সংহতি কুমিল্লা (দঃ) জেলার সংগ্রামী সভাপতি মাহবুব রশিদ মাহবুব. বিশিষ্ঠ ক্রীড়া ও সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠক চৌদ্দগ্রাম উপজেলা জাতীয় পাটির সাধারণ সম্পাদক মোঃ খোরশেদ আলম. লাকসাম উপজেলা জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব আবুল কাশেম ভূইঁয়া . জাতীয় যুব সংহতি কুমিল্লা (দঃ) জেলার সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান. জাতীয় ছাত্র সমাজ কুমিল্লা (দঃ) জেলার সভাপতি ওমর ফারুক ভূইঁয়া সোহেল. স্বেচ্ছাসেবক পার্টি কুমিল্লা (দঃ) জেলার আহবায়ক তৌহিদুল ইসলাম চৌধুরী.যুব সংহতি চৌদ্দগ্রাম পৌরসভার আহবায়ক ইব্রাহিম খাঁন. জাতীয় পার্টি আলকরা ইউনিয়ন সভাপতি শহিদুল ইসলাম. গুনবতি ইউনিয়ন সভাপতি সাইফুল মেম্বার. মুন্সির হাট ইউনিয়নের সভাপতি আবুল কাশেম. ছাত্রসমাজ কুমিল্লা (দঃ) জেলার সহ-সভাপতি মিজানুর রহমান.যুব সংহতি চৌদ্দগ্রাম উপজেলার সদস্য সচিব মোঃ শাহজাহান. কুমিল্লা সদর (দঃ) উপজেলার জাপার আহবায়ক জনাব সৈয়দ আঃ রাজ্জাক বাদাল. কুমিল্লা মহানগর জাপার যুগ্ম আহবায়ক ফজল খাঁন শাহীনূরসহ চৌদ্দগ্রাম ও কুমিল্লার বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা ও কর্মীরা। বক্তারা সকলেই বলেন জনাব এইচ.এন.এম শফিকুর রহমান যখন মৃত প্রায় জাতীয় পার্টিকে কুমিল্লা তথা চৌদ্দগ্রামে সূ-সংগঠিত করে গণ জোয়ার সৃষ্টি করেন তখনি পার্টির ভিতরের ও বাহিরের রাজনীতির কুশীলবরা নিজেদের মধ্যকার সকল রাজনৈতিক ভোদাভেদ ও মত প্রার্র্থক্য ভূলে গিয়ে এক যোগে আঘাত করে জনাব শফিকুর রহমান নিশ্চিহ্ন করার সূগভীর ষড়যন্ত্র করে কুমিল্লার তথা চৌদ্দগ্রামের মানুষ থেকে তাঁেক বিচ্ছিন্ন করতে তাঁর জনকল্যান মুলক ব্যাসায়িক প্রতিষ্ঠান ধ্বংশ করা হয়। তাঁকে চিরতরে হত্যা করা, গুম করার মত ন্যাক্কারজনক প্রচেষ্টা ও করা হয় বহুবার। জাতীয় পার্টি থেকে তাঁকে বিতাড়িত করে কুমিল্লাকে নেতৃত্ব শুন্য করার জন্য ও দলীয় কিছু কুলাঙ্গাঁরের মাধ্যমে বার বার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু কুমিল্লা (দঃ) জেলা ও মহানগরের সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের প্রতিরোধের মূখে বার বার তারা ব্যার্থ হয়েছে। কুমিল্লা (দঃ) জেলার সকল উপজেলা কমিটি, অংগ সংগঠনের কমিটি সহ সর্বস্তরের নেতা কর্মীরা জনাব শফিকুর রহমানের সাথে অতন্ত্র প্রহরীর মত ঐক্যবদ্ধ আছে ও থাকবে, ইন্শা-আল্লাহ।
সকল বক্তারা আগামী জাতীয় নির্বাচনে কুমিল্লা (দঃ) জেলার পক্ষ থেকে কুমিল্লা-১১ চৌদ্দগ্রাম আসন থেকে জনাব এইচ.এন.এম শফিকুর রহমান’কে দলীয় মনোনয়ন নিশ্চিৎ করার উদাত্ত আহ্বান জানান। কুমিল্লা জেলার সকল নেতা কর্মীরা প্রয়োজনে বুকের তাজা রক্ত দিয়ে হলেও চৌদ্দগ্রামের আসনের ব্যাপারে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না বলে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যাক্ত করেন।
জনাব শফিকুর রহমান তাঁর দীর্ঘ বক্তৃতায় বলেন আমি সমবায়ের মাধ্যমে দেশে বেকারত্ব নিরসন, দারিদ্র বিমোচন ও অর্থিৈনতক মুক্তির লক্ষে যে কর্মসূচি নিয়ে কাজ শুরু করেছিলাম তার সূফল দেশের জনগণ ভোগ করতে শুরু করেছিল। লক্ষ লক্ষ বেকারের কর্মসংস্থানসহ কোটি কোটি মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের পথ সূগম হয়েছিল। কিন্তু দেশীয় ও আর্ন্তজাতিক পুঁজিবাদী লুটেরা গোষ্টির সূগভীর ষঢ়যন্ত্রের কবলে পরে ২০১২-২০১৩ সালে বাংলাদেশের সমবায় অঙ্গঁনের উপর দিয়ে বয়ে যায় এক মহাপ্রলয়ংকারী ঘূর্ণিঝড় “সিডর”। এ ঝড়ের তান্ডবে ছিন্ন ভিন্ন হয়ে যায় প্রতিষ্ঠিত ও জন কল্যানে নিবেদিত হাজার হাজার সমবায়ী প্রতিষ্ঠান ও বেকার হয়ে পড়ে লক্ষ লক্ষ সমবায় কর্মী, কোটি কোটি আমানতকারী হয়ে পড়ে সর্বস্বহারা। সমবায় উদ্যোক্তারা বলির পাঠা হয়ে প্রায় সকলেই জেল, জুলুম, হুলিয়া নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। কিন্তু এ মহা দূর্যোগেও আমি হাল ছাড়িনি। সরকারী সকল এজেন্সীর সকল প্রকার তদন্ত মোকাবেলা করে প্রমান করেছি আমরা কোন অপরাধ করিনি। আমরা পরিস্থিতির শিকারে পরিনত হয়েছি। সরকারী সকল এজেন্সী দীর্ঘ ৪ বৎসরের সকল পরীক্ষা নিরীক্ষার পর বিষয়টি নিশ্চিৎ হয়ে এক পর্যায়ে সার্বিক সহযোগিতা করছেন ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য, এ জন্য তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে জনাব শফিকুর রহমান বলেন আমরা ইতিমধ্যে সিংহভাগ দায় পরিশোধ করেছি, অনুকুল পরিবেশ পেলে এবং সরকারী আনুকুল্য পেলে আমরা আবার ঘুরে দাঁড়াব ইন্শা-আল্লাহ।
জনাব শফিকুর রহমান আরো বলেন সাবেক প্রধান মন্ত্রী মরহুম জনাব কাজী জাফর আহম্মদ ছিলেন এ দেশের রাজনিতির প্রাণ পুরুষ, রাজনীতির সকল উত্থান পতনের সাথে তাঁর সম্পৃক্ততা প্রমানিত সত্য। তিনি আমাকে ¯েœহ করতেন, ভালবাসতেন। একটি কুচক্রী মহল তাঁেক বিভ্রান্ত করে আমাদের মাঝে অনাহুত বিভক্তি সৃষ্টি করে তাঁেক দল থেকে বেরিয়ে আলাদা দল করার মত তাঁর একটি রাজনৈতিক ভূল সিদ্ধান্তের কারনে তিনি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন, দল ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। মৃত্যুর পর যে সম্মানটুকু তিনি পাওয়ার অধিকারী ছিলেন তা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। আজ তাঁর মৃত্যু বার্ষিকী ও জন্ম বার্ষিকী নিভৃতে চলে যায়। অন্য দলের গুটি কতেক লোকের নাটক মঞ্চস্থ হতে দেখে আমরা কষ্ট পাই, ব্যাথিত হই। চৌদ্দগ্রাম তথা কুমিল্লায় এ নেতার যোগ্য সম্মান ও মূল্যায়ন নিশ্চিৎ করার লক্ষে আমরা যা যা করার তা করতে বদ্ধ পরিকর। যাঁরা তাঁর জীবদ্ধশায় তাঁর বিরুদ্ধে হাজার ষড়যন্ত্র ও বিশোধাগার করত। প্রতিনিয়ত তাঁদেরকে আজ তাঁর জন্য মায়াকান্না করতে দেখে আমাদের হাসি পায়। কাজী জাফরের অসংখ্য ভক্তরা আজ দ্বিধাবিভক্ত। আমরা তাদেরকে ঐক্যবদ্ধ করে তাঁর স্মৃতি রক্ষায় কার্য্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করব ইন্শা-আল্লাহ। জনাব শফিকুর রহমান আরো বলেন আমি ছাত্র জীবন থেকে চৌদ্দগ্রামের অলিতে গলিতে ঘুরে বেড়িয়েছি। চৌদ্দগ্রামের মাটিও মানুষের সাথে আমার যে নিবিড় সম্পর্ক স্থাপিত হয়েছে। চৌদ্দগ্রামের বেকারত্ব নিরসনে, শিক্ষা বিস্তারে আমি যে মিশন নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছিলাম। ষড়যন্ত্রের কারনে তার ছন্দ পতন হলেও আমি হতাশ নই। আমি আমার সকল মেধা ও যোগ্যতা দিয়ে মহান রাব¦ুল আলামীনের উপর ভরসা করে চৌদ্দগ্রামের মানুষের উন্নয়নে কাজ করে যাব।
নেতাকর্মীদের উদ্যেশ্যে তিনি বলেন-
আপনারা অতিদ্রুত তৃণমূলের নেতাকর্মীদেরকে সূ-সংগঠিত করে মূলদলসহ সকল অংগ সংগঠনের সকল কমিটি পূনঃগঠন করে সকল রক্ত চক্ষুকে উপেক্ষা করে জাতীয় পার্টির আদর্শ, পল্লী বন্ধুর আদর্শ সর্বত্র ছড়িয়ে দিন। গণজোয়ার সৃষ্টি করুন, জাতীয় পার্টি আজ বাংলাদেশের রাজনীতিতে এক বাস্তবতা। বড় ২ দলের সন্ত্রাস, দূর্নীতি ও অপরাজনীতিতে জনগনের নাভিস্বাস উঠেছে। এ অবস্থা থেকে নিস্তার চায় মানুষ। পল্লী বন্ধুর সূদীর্ঘ রাজনৈতিক ও সমাজ সংস্কার মূলক সফলতা সমূহ মানুষের কাছে তুলে ধরতে হবে। মানুষ ২ দলের কাছ থেকে দেশকে মুক্ত করে বিকল্প হিসাবে এরশাদ ও জাতীয় পার্টিকে ক্ষমতায় দেখতে চায়। এ জন্য নেতা কর্মীদেরকে ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে। আগামী নির্বাচনে শুধু চৌদ্দগ্রাম নয় কুমিল্লার বাকী ১০ টি আসনেও জাতীয় পার্টির পক্ষে গণ জোয়ার সৃষ্টি করে সকল আসনে যোগ্য প্রার্থী বাছাই করে মাঠে নামার জন্য তিনি জেলা নেতৃবৃন্দকে উদাত্ত আহবান জানান।
সভায় জনাব শফিকুর রহমান জাতীয় যুব সংহতি চৌদ্দগ্রাম উপজেলা ও পৌরসভার কমিটি ঘোষনা করলে উপস্থিত সকল নেতা কর্মীরা মুহুর্মূহ শ্লোগানের মাধ্যমে ঘোষিত কমিটির প্রতি অকুন্ঠ সমর্থন ব্যাক্ত করেন।
চৌদ্দগ্রাম উপজেলা যুব সংহতির সভাপতি হিসেবে বিশিষ্ট যুব সংগঠক জনাব মোঃ জসিম উদ্দিন এবং সেক্রেটারী হিসেবে জনাব মোঃ শাহাজাহান ও সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে জনাব কাজী ইয়াসিন আরাফাত সহ ১০১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্নাঙ্গ কমিটির নাম ঘোষনা করা হয়। অপর দিকে চৌদ্দগ্রাম পৌরসভা জাতীয় যুব সংহতির সভাপতি হিসেবে মোঃ ইব্রাহিম খাঁন এবং সেক্রেটারী হিসেবে জনাব এয়াছিন মজুমদার ও সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে জনাব তৌহিদুল ইসলাম আজিম সহ ৫১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির নাম ঘোষনা করা হয়। নবঘোষিত কমিটির পক্ষ থেকে অতিথিদের ফুলেল শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করা হয়।
এক পর্যায়ে জনাব শফিকুর রহমান আগামী সকল স্থানীয় নির্বাচনে দলের অংশ গ্রহনের লক্ষে সম্ভাব্য সকল প্রার্থীদের প্রস্ততি গ্রহনের আহ্বান জানিয়ে আগামী উপজেলা নির্বাচনে দলের উপজেলা সভাপতি জনাব খায়েজ আহম্মদ ভূইঁয়াকে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে এবং দলের উপজেলা সেক্রেটারী জনাব খোরশেদ আলমকে চৌদ্দগ্রাম পৌরসভার মেয়র প্রার্থী হিসেবে সকল প্রস্ততি গ্রহনের আহবান জানিয়ে এবং সকলকে আবারো দলকে সূসংগঠিত করার আহবান জানিয়ে বক্তবসমাপ্ত করেন।

 

 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.