আজ মিয়ানমার যাচ্ছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক : দমন-পীড়নের মুখে পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা সংকট সমাধানের জন্য আলোচনা করতে আজ সোমবার মিয়ানমার যাচ্ছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নেতৃত্বে ১২ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল মিয়ানমার সফরে যাবেন।

সোমবার বেলা পৌনে একটার দিকে বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে মিয়ানমারের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা শরীফ মাহমুদ অপু এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, সফরে রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত দেয়ার বিষয়ে আলোচনার পাশাপাশি অন্যান্য অমীমাংসিত বিষয় নিয়েও আলোচনা হবে।

অপু বলেন, প্রতিনিধিদলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ছাড়াও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দুই সচিব, একজন যুগ্ম সচিব, একজন উপসচিব, বিজিবি, পুলিশ ও অন্যান্য সংস্থার প্রতিনিধি থাকবেন।

গত ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে কয়েকটি পুলিশি চেকপোস্টে হামলার জের ধরে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে অভিযানে নামে দেশটির সেনাবাহিনী। অভিযানের নামে শত শত রোহিঙ্গাকে হত্যা করে সেনাবাহিনী ও রাখাইন সন্ত্রাসীরা। এছাড়া পুড়িয়ে দেয়া হয় রোহিঙ্গাদের শত শত ঘরবাড়ি। নির্যাতন থেকে বাঁচতে ছয় লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। এদের বেশিরভাগই শিশু ও নারী।

রোহিঙ্গাদের ওপর চলা নির্যাতনে নিন্দা জানায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশ। এছাড়া এ সংকট সমাধানে মিয়ানমার সরকারকে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানান জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেজও।

আন্তর্জাতিক চাপের মুখে গত ২ অক্টোবর রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় মিয়ানমারের ক্যাবিনেট মন্ত্রী কিও তিন্ত সোয়ের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের বৈঠক হয়। বৈঠক শেষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী জানিয়েছিলেন, দুই দেশের মধ্যে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে। মিয়ানমার তাদের দেশের নাগরিকদের ফেরত নিতে সম্মত হয়েছে। এজন্য দুই দেশ একটি যৌথ চুক্তি ও ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠন করবে। চুক্তির আলোকে ওয়ার্কিং গ্রুপ যাচাই-বাছাই করে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানো হবে।

এছাড়া নিরাপত্তা ইস্যু নিয়ে আলোচনা করতে কিছুদিনের মধ্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মিয়ানমার সফরে যাবেন বলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছিলেন।

পরে ১২ অক্টোবর সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রোহিঙ্গা সংকট সমাধানের জন্য আলোচনা করতে ২৩ অক্টোবর মিয়ারমার যাওয়ার কথা বলেছিলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছিলেন, মিয়ানমার সফরে আমাদের অমীমাংসিত কিছু এজেন্ডা নিয়ে আলোচনা করবো। তবে সফরের মূল এজেন্ডা থাকবে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে তাদের দেশে ফিরিয়ে দেয়া।

তিন দিনের মিয়ানমার সফর শেষে আগামী ২৫ অক্টোবর প্রতিনিধি দলের দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.