অাগামীকাল ২২ নভেম্বর বুধবার “মরহুমা ডা: যোবায়দা হান্নানের ৬ষ্ঠ মৃত্যু বার্ষিকী”

নাঙ্গলকোট(কুমিল্লা)প্রতিনিধি :

অাশারকোটা গ্রামের বধু হয়ে এসেছিলেন ডা: যোবায়দা হান্নান।এ গ্রামের মানুষদের তিনি প্রাণ খুলে ভালোবেসেছিলেন।তাইতো অাশারকোটা গ্রামে তিনি নিজ নামে করেছেন প্রাইমারী স্কুল, হাইস্কুল ও কলেজ।এ গ্রামে তিনি নিয়ে এসেছিলেন ইউনিয়ন স্বাস্থ্য সেবাকেন্দ্র ও তহসিল অফিস।নাঙ্গলকোট উপজেলার অাওতাধীন গ্রামগুলোর মধ্যে সর্বপ্রথম বিদ্যুৎ সংযোগ পেয়েছিলো অাশারকোটা গ্রামবাসী।এ অবদানও ডা: যোবায়দা হান্নানের।মরহুমা ডা: যোবায়দা হান্নানের শেষ অছিয়াত ছিলো মৃত্যুর পর যেন তাকে অাশারকোটায় দাফন করা হয়। অছিয়াত অনুযায়ি মরহুমাকে তাঁর প্রতিষ্ঠিত কলেজ মাঠের পূর্বপাশে দাফন করা হয়েছে।

মহিয়সী এ নারী কুমিল্লার ডায়াবেটিক হাসপাতাল ও অালেখারচর বিশ্বরোডে অবস্থিত অন্ধকল্যাণ হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করেছেন।তিনি নারী সচেতনতা বৃদ্ধি করতে কুমিল্লায় প্রতিষ্ঠা করেছিলেন কয়েকটি নারী সংগঠন।তিনি পেশায় ছিলেন চিকিৎসক। গাইনি বিশেষজ্ঞ এ নারী সমাজ সেবায় বিশেষ অবদান রাখায় তাঁকে রাষ্ট্রীয় ভাবে দেয়া হয়েছিলো একুশে পদক।

বিভিন্ন সময়ে সামাজিক-সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে ডা: যোবায়দা হান্নানের সাথে অামার দেখা হয়েছে।খুব কাছে থেকে তাঁকে দেখার সুযোগ হয়েছে অামার।এখানের পোস্ট করা প্রথম ছবিটি ২০০৬ সালের ছবি।যুক্তিখোলা হাইস্কুলে গুণিজন সংবর্ধনা অনুষ্ঠান।অামি ছিলাম বিশেষ অতিথি।ডা: যোবায়দা হান্নান ছিলেন প্রধান অতিথি।তৎকালীন কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সেলিনা পারভেজ ছিলেন অনুষ্ঠানের সভাপতি।

ডা: যোবায়দা হান্নান নেই। ২২ নভেম্বর মরহুমার ৬ষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী। অামরা দোয়াকরি অাল্লাহ তায়ালা যেন তাঁর ভালো অামলগুলো কবুল করে জান্নাত নসিব করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!