1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. mdmizanm944@gmail.com : Mizan Hawlader : Mizan Hawlader
সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ০১:১৬ অপরাহ্ন

অফিস-সহকারী এখন সার্জন

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ৮ আগস্ট, ২০১৭
  • ৪০ বার পড়া হয়েছে

বান্দরবন প্রতিনিধি : ১০০শয্যার বান্দরবান সদর হাসপাতালে সার্জনের দায়িত্ব পালন করছেন হাসপাতালের ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারী অফিস-সহকারী তোফাজ্জল হোসনে।গতকাল সোমবার বিকেলে সরজমিনে গেলে তার বাস্তব চিত্র মিলে হাসপাতালের ইমারর্জেন্সিতে। মোবারক হোসেন নামে ঢাকার এক পর্যটক রামাজাদি যাওয়ার পথে কালাঘাটায় টমটম দুর্ঘটনার শিকার হয়ে মাথায় গুরুত্র আঘাত প্রাপ্ত হন। পরে তাকে সদর হাসপাতালে নিলে ইমার্জেন্সিতে চিকিৎসা শুরু হয়। তখন মাথায় সেলাইয়ের প্রয়োজন হলে সেই সেলাইয়ের কাজ করেন অফিস সহকারী তোফাজ্জল হোসেন।কৃঞ্চা চৌধুরী নামে আরো রুগি ৮জুলাই বাম হাতে আঘাত পেয়ে বান্দরবান সদর হাসপাতালের বহি:বিভাগে চিকিৎসা নিতে গেলে ১০নং রুমে বহি:বিভাগে কর্মরত ডাক্তার তাকে ইমার্জেন্সিতে রেফার করেন। তখন ইমার্জেন্সিতে কর্মরত হাসপাতালের অফিস সহকারী তোফাজ্জলই কৃষ্ণা চৌধিরীকে হাতে প্লাষ্টার করে দেন। পরে তাকে ২৫দিন পর প্লাষ্টার খোলার জন্য যোগাযোগ করতে বলেন।সর্বশেষ সোমবার সকাল ১০টায় প্লাষ্টার খোলার জন্য হাসপাতালে গেলে কর্তব্যরত নার্স মৌসুমী তোফাজ্জলকে প্লাষ্টার খোলে দিতে বলেন। তখন তোফাজ্জল অপারগতা প্রকাশ করে বাসায় দেখা করতে বলেন।জেলার নিউগুলশান এলাকার ব্যবসায়ী রুপন চৌধুরীর স্ত্রী কৃষ্ণা চৌধুরী জানান, আমি তোফাজ্জলকে অনেক বার বলেছি প্লাষ্টার খুলে দিতে। প্রথমে মেশিন নষ্ট, পরে মেশিন বাসায় বলে সে প্লাষ্টার খুলে দেয়নি।কৃষ্ণা জানান, সে প্লাষ্টার করার সময় বলেছিল ৩০০টাকা ছাড়া প্লাষ্টার খোলা হবে না। পরে চিকিৎসা না পেয়ে হাসপাতাল থেকে বাসায় ফিরে আসি।কৃঞ্চার স্বামী রুপন চৌধুরী বলেন, আমার স্ত্রী দোকানে এসে কান্না করতে থাকলে আমি নিজে আঁড়ি ব্লেড (লোহা কাটার যন্ত্র) দিয়ে তার হাতের প্লাষ্টার কেঁটে খুলে দিয়েছি।জানতে চাইলে অফিস সহকারী তোফাজ্জল জানান, প্লাষ্টার আমি করে ছিলাম। মেশিন নষ্ট হওয়ায় তার হাতের প্লাষ্টার খুলতে পারিনি। আমার বাসায় মেশিন আছে তাকে বাসায় কেঁটে দিব বলেছি। টাকা চাওয়ার বিষয়টি সত্য নয় বলে দাবি করেন তোফাজ্জল হোসেন।এবিষয়ে বান্দরবান সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা: শাহানা রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, বিষয়টি সিভিল সার্জনকে অবহিত করেছি, বক্তব্য তিনিই দিবেন।সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ও সিভিল সার্জন ডা: অংশৈ প্রু চৌধুরী মুঠোফোনে জানান, তোফাজ্জল দেখতে দেখতে প্লাষ্টার করা শিখেছে। হাসপাতালের প্লাষ্টার খোলার মেশিন নষ্ট। অর্থোপেডিক না থাকায় সে কাজগুলো করে থাকে। সে এবিষয়ে অভিজ্ঞ কিনা জানতে চাইলে তিনি মিটিং এ আছেন বলে মুঠোফোনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।ভুক্তভোগিদের অভিযোগ সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকগণ প্রয়োজনীয় চিকিৎসা না করে তারা অফিস সহকারীর মতো লোক দিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ চিকিৎসা করায় তারা যে কোন সময় বড় ধরণের ক্ষতির আশঙ্কা করছেন।এবিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃক্ষের দৃষ্টি আর্কষণ করেন তারা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন মজুমদার,
প্রধান উপদেষ্টা সাজ্জাদুল কবীর,
উপদেষ্টা জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা এম মিজানুর রহমান

Copyright © 2020 www.comillabd.com কুমিল্লাবিডি ডট কম. All rights reserved.
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!